মঙ্গলবার, ১৯-নভেম্বর ২০১৯, ০৭:১৮ পূর্বাহ্ন
  • প্রশাসন
  • »
  • বগুড়ায় ব্যবসায়ীকে থানায় অমানুষিক নির্যাতন, ৪ পুলিশ বরখাস্ত

বগুড়ায় ব্যবসায়ীকে থানায় অমানুষিক নির্যাতন, ৪ পুলিশ বরখাস্ত

shershanews24.com

প্রকাশ : ১৬ জুন, ২০১৯ ১২:০৫ পূর্বাহ্ন

শীর্ষকাগজ, বগুড়া: বগুড়া সদর থানায় পুলিশ সদস্যরা ব্যবসায়ী সোহান বাবু আদরকে ডেকে নিয়ে (৩২) নির্যাতন চালিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। পরে ওই ব্যবসায়ীর মুচলেকা নিয়ে ছেড়ে দেয়ার পর তাকে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে তার পরিবার।

বাবু বগুড়া শহরের সুলতানগঞ্জপাড়া উটের মোড় এলাকার সাইদুর রহমানের ছেলে। এদিকে তাকে পুলিশি নির্যাতনের ঘটনায় শনিবার বিকালে ৪ পুলিশ সদস্যকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। 

আহত ব্যবসায়ী বাবুর পিতা সাইদুর রহমান জানান, বগুড়া শহরের গোয়ালগাড়ি এলাকায় আল ফালাহ বহুমুখি নামে সোহান বাবু আদর, সাথী বানু ও তার স্বামী বাপ্পি মিয়া তিনজন মিলে একটি সমিতি দেয়। তাদের মধ্যে ঝামেলা হলে সাথী ও বাপ্পির অভিযোগে বৃহস্পতিবার রাত ১১ টায় বগুড়া সদর থানার কনস্টেবল (মুন্সি) এনামুল হক মোবাইল ফোনে বাবুকে থানায় ডেকে নেন। বাবু থানায় গেলে সদর থানায় এসআই আব্দুল জোব্বার, এএসআই এরশাদ হাতে হ্যান্ডকাপ লাগিয়ে ১১ লাখ টাকা দাবি করে। 

পুলিশের দাবিকৃত টাকা দিতে অস্বীকার করায় তাকে বেদম প্রহার করা হয়। একই দাবিতে থেমে থেমে নির্যাতন করা হয়। এরপর শুক্রবার দুপুরে নামাজের সময় একই দাবিতে পুনরায় অমানুষিক নির্যাতন করা হয়। পা থেকে কোমর পর্যন্ত লাঠি দিয়ে পিটিয়ে রক্তাক্ত ফোলা জখম করে থানার একটি কক্ষে ফেলে রাখে। শুক্রবার রাত ১২ টায় থানার ভেতরে সে অসুস্থ্য হয়ে পড়লে পুলিশ সদস্যরা আহত বাবুর পরিবারের সদস্যদের ডেকে এনে সাদা কাগজে স্বাক্ষর নিয়ে ছেড়ে দেয়। মুচলেকা দেওয়ার পরেও ২০ হাজার টাকা নেয় বলে অভিযোগ। ছেলেকে থানা থেকে ছেড়ে নিয়ে বগুড়ার শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করান তিনি। 

অভিযুক্ত সাথী বানু ও তার স্বামী বাপ্পি মিয়া শহরের কাটনারপাড়া আলোরমেলা স্কুল এলাকার বাসিন্দা।

বগুড়ার ভারপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার আরিফুর রহমান মন্ডল জানান, এ ঘটনায় বগুড়া সদর থানার এসআই আব্দুল জব্বার, এএসআই মো: এরশাদ, এএসআই নিয়ামত উল্লাহ ও কনস্টেবল এনামুল হককে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। হাসপাতালে গিয়ে বাবুর সাথে কথা বলা হয়েছে।

বগুড়া সদর সার্কেল অতিরক্তি পুলিশ সুপার সানতন চক্রবর্ত্তী জানান, বিষয়টি তদন্ত সাপেক্ষে দোষী পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
শীর্ষকাগজ/এসএসআই