রবিবার, ২০-অক্টোবর ২০১৯, ০১:২০ অপরাহ্ন
  • জেলা সংবাদ
  • »
  • নওগাঁয় অজ্ঞাত ভাইরাসে আক্রান্ত শত শত গরু 

নওগাঁয় অজ্ঞাত ভাইরাসে আক্রান্ত শত শত গরু 

shershanews24.com

প্রকাশ : ১০ অক্টোবর, ২০১৯ ১০:০৩ পূর্বাহ্ন

শীর্ষনিউজ, নওগাঁ: নওগাঁয় অজ্ঞাত ভাইরাসজনিত রোগে শত শত গরু আক্রান্ত হচ্ছে। গরুর গায়ে বড় বড় গুটি হওয়ার একপর্যায়ে চামড়ায় ফোসকা পড়ে ঘায়ে পরিণত হচ্ছে। ইতোমধ্যে এ রোগে আক্রান্ত হয়ে ১৪টি গরু মারা গেছে। 
হঠাৎ এ রোগ দেখা দেয়ায় খামারি ও গরু পালনকারীরা চরম দুঃচিন্তায় পড়েছেন। এ অবস্থায় স্থানীয় প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর রোগের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য ঢাকায় পাঠিয়েছে।
নওগাঁর সদর উপজেলার ঝাড় গ্রাম। এ গ্রামে গরু প্রতিপালন করে প্রায় আড়াইশো পরিবার। এক মাস ধরে হঠাৎ করে প্রায় প্রতিটি গরু জ্বরে আক্রান্ত হয়। সেই সঙ্গে গা ফুলে আস্তে আস্তে গরুর শরীরে বড় বড় গুটি ফুটে উঠে। একপর্যায়ে এসব গুটিতে দগদগে ঘা হয়ে গরুর চামড়ায় পচন ধরছে। আক্রান্ত এসব গরুকে বিভিন্ন ওষুধ খাওয়ানোর পাশাপাশি নানা প্রতিষেধক ব্যবহার করেও মিলছে না কোনো প্রতিকার বলে জানান কৃষক ও কৃষাণীরা।

জেলার ১১টি উপজেলার মধ্যে রানীনগর, মহাদেবপুর আত্রাই, পত্নীতলায় অধিক হারে এ ভাইরাস রোগ দেখা দিয়েছে। ইতোমধ্যে জেলায় এ রোগে আক্রান্ত হয়ে বেশ কিছু গরু মারা গেছে বলে জানান গরু প্রতিপালনকারীরা।

স্থানীয় প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর ভাইরাসজনিত এ রোগকে লাম্পিং ডিজিজ নামে অভিহিত করে গ্রামপর্যায়ে নানা সচেতনমূলক কর্মকাণ্ড চালাচ্ছে।

অতিরিক্ত জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. শামীম নাহার জানান, যে সমস্ত এলাকার গরু খামারে এ রোগ দেখা দিয়েছে সেখানে আমাদের মেডিকেল টিম কাজ করছে।

ভাইরাসজনিত এ রোগ গতবছর প্রথম দেখা দেয় যশোর ও মেহেরপুরে। প্রাথমিক পর্যায়ে এ রোগের কোনো প্রতিষেধক না থাকায় সচেতনতার মাধ্যমে রোগ প্রতিরোধ করার পরামর্শ দেন নওগাঁর প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের ভেটেরিনারি সার্জন ডা. রাইহানুল আলম।

প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের তথ্য মতে, জেলায় ২০ হাজার ১১০টি গো খামার ছাড়াও প্রান্তিকপর্যায়ে প্রায় আড়াই লাখ নারী ও পুরুষ সাড়ে ৩ লাখ গরু প্রতিপালন করেন। এর মধ্যে ভাইরাসজনিত এ রোগে প্রায় ২৫ হাজার গরু আক্রান্ত হয়েছে।
শীর্ষনিউজ/প্রতিনিধি/জে