সোমবার, ১৮-নভেম্বর ২০১৯, ০৪:২২ অপরাহ্ন
  • জেলা সংবাদ
  • »
  • ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’: সেন্টমার্টিনে পর্যটকরা নিরাপদে

ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’: সেন্টমার্টিনে পর্যটকরা নিরাপদে

shershanews24.com

প্রকাশ : ০৯ নভেম্বর, ২০১৯ ১২:২৯ অপরাহ্ন

শীর্ষনিউজ, কক্সবাজার: বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’-এর কারণে কক্সবাজারের টেকনাফ থেকে সেন্টমার্টিনের জাহাজ চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। সেখানে আটকা পড়েছে প্রায় এক হাজার ২০০ পর্যটক। তবে সবাই নিরাপদে আছেন বলে জানিয়েছে জেলা প্রশাসন।  
ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’-এর কারণে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতকে চার নম্বর স্থানীয় হুঁশিয়ারি সংকেত দেখিয়ে যেতে বলেছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। যদিও মোংলা ও পায়রা সমুদ্র বন্দরে ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত এবং চট্টগ্রাম সমুদ্র বন্দরে ৯ নম্বর মহাবিপদ সংকেত কার্যকর রয়েছে।
ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে আজ শনিবার সকাল থেকেই কক্সবাজারে গুড়ি গুড়ি বৃষ্টি হচ্ছে। কখনো কখনো দমকা বাতাসও বইছে। সমুদ্র উত্তাল থাকায় আগেই মাছ ধরার ট্রলারগুলো স্থলভাগে এসে নোঙর করেছে। পাশাপাশি জেলায় পাহাড় ধসে ক্ষয়ক্ষতি এড়াতে লোকজনদের নিরাপদ স্থানে নেওয়া হচ্ছে। তবে ১১ লাখ রোহিঙ্গা রয়েছে জেলার উপকূলবর্তী অঞ্চলের শরণার্থী শিবিরে। সেখানে পাহাড় ধসের আশঙ্কায় তাদের সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থায় রাখা হয়েছে।   
জেলার সেন্টমার্টিন ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান নুর আহমদ আজ গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, বৈরি আবহাওয়ার কারণে গতকাল শুক্রবার থেকে টেকনাফ-সেন্টমার্টিন নৌপথে জাহাজ চলাচল বন্ধ রয়েছে। ফলে সেন্টমার্টিনে প্রায় এক হাজার ২০০ পর্যটক আটকা পড়েছে। গত বৃহস্পতিবার বেড়াতে আসা পর্যটকদের অনেকে রাত্রিযাপনের জন্য সেন্টমার্টিনে থেকে যায়। বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’-এর কারণে হঠাৎ স্থানীয় হুঁশিয়ারি সংকেত বেড়ে যাওয়ায় জাহাজ চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে প্রশাসন।
জেলা প্রশাসনের নির্দেশে স্থানীয় প্রশাসন পর্যটকদের সর্বোচ্চ নিরাপত্তা নিশ্চিত করেছে বলেও উল্লেখ করেন ইউপি চেয়ারম্যান নুর আহমদ। তিনি আরো বলেন, ‘দুর্যোগ না কাটা পর্যন্ত সবাইকে পরিচ্ছন্নভাবে হয়রানিমুক্ত আতিথেয়তা দিতে হোটেল কর্তৃপক্ষকে বলা হয়েছে। ইউনিয়ন পরিষদের সবাই সর্বক্ষণ পর্যটকদের খোঁজ-খবর নিচ্ছে। পাশাপাশি পর্যটকদের আতংকিত না হতে অনুরোধ জানানো হচ্ছে।   
শীর্ষনিউজ/জে