বৃহস্পতিবার, ২৯-অক্টোবর ২০২০, ০৮:৪৫ পূর্বাহ্ন

শ্রিংলার আকস্মিক সফর শুধুই ভ্যাকসিনের জন্য?

shershanews24.com

প্রকাশ : ২০ আগস্ট, ২০২০ ০৮:২৫ অপরাহ্ন

শীর্ষনিউজ ডেস্ক : ভারতের পররাষ্ট্র সচিব হর্ষবর্ধন শ্রিংলার হঠাৎ ঢাকা সফর অনেক কৌতুহল সৃষ্টি করলেও শেষ পর্যন্ত কী হলো তা নিয়ে প্রশ্ন রয়েই গেছে৷ 

লাদাখ সীমান্তে ভারতের সাথে চীনের যুদ্ধ-পরিস্থিতি, ভারতীয় সংবাদ মাধ্যমে বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক নিয়ে ‘নেতিবাচক’ প্রচারণা, বাংলাদেশে চীনা বিনিয়োগ- এসব বিবেচনা করলে সফরটি গুরুত্বপূর্ণ ছিল ভারতের জন্য৷ কিন্তু প্রশ্ন হলো, বাংলাদেশ কী পেলো বা বাংলাদেশের জন্য ভারতের নতুন কোনো বার্তা আছে?

বাংলাদেশের পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেনের সঙ্গে হর্ষবর্ধন শ্রিংলার বৃহস্পতিবারের বৈঠকটিই হলো সফরের উল্লেখযোগ্য বিষয়৷ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথেও তিনি দেখা করেছেন৷ সুশীল সমাজ ও সাংবাদিকদের সাথেও কথা বলেছেন ভারতীয় পররাষ্ট্র সচিব৷

এখানে যে বিষয়টি মূলত আলোচনায় উঠে আসছে তা হলো ভারত বাংলাদেশকে করোনার ভ্যাকসিন অগ্রাধিকার ভিত্তিতে দেবে৷ তবে এই ভ্যাকসিনটি ভারতের আবিস্কার নয়, অক্সফোর্ড ভ্যাকসিনের কথাই তারা বলছে৷ ভারতে একটি প্রতিষ্ঠান এই ভ্যাকসিনের সঙ্গে যুক্ত৷ বাংলাদেশে এর ট্রায়ালের কথা হয়েছে৷ বাংলাদেশও সম্মতি দিয়েছে৷ যদিও চীনা ভ্যাকসিনের ট্রায়াল আটকে আছে৷

এর বাইরে এয়ার বাবল, সীমান্ত হত্যা, রোহিঙ্গা সমস্যা, করোনার সময় অর্থনেতিক ও চিকিৎসা সহযোগিতা, ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের ভূমিকা-এসব বিষয় নিয়েই দুই দেশের পররাষ্ট্র সচিব পর্যায়ে আলোচনা হয়েছে৷

বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ঢাকায় ছিলেন না, ছিলেন তার গ্রামের বাড়ি সিলেটে৷ ফলে তার সাথে শ্রিংলার সাক্ষাৎ হয়নি৷ আর প্রধানমন্ত্রীর সাথে তার সাক্ষাতের ইস্যুগুলোও জানা যাচ্ছে না আপাতত৷

তবে বালাদেশে ভারতের রাষ্ট্রদূত রীভা গাঙ্গুলি দাশ মঙ্গলবার সন্ধ্যায় প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে শ্রিংলার সাক্ষাতের পর এক ব্রিফিংয়ে বলেন, ‘‘বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে গভীর সম্পর্ক রয়েছে এই বার্তা দিতেই শ্রিংলা ঢাকা সফর করছেন এবং উন্নয়নের পথে অংশীদার হতে ভারত সবসময় বাংলাদেশের পাশে থাকবে৷’’

তিনি আরো বলেন, ‘‘বাংলাদেশের সাথে ভারতের বিশেষ ও নিবিড় সম্পর্ক রয়েছে৷ এজন্য এই মহামারি চলাকালীনও পররাষ্ট্রসচিব প্রধানমন্ত্রীর সাথে দেখা করতে এসেছেন৷’’

এদিকে বৃহস্পতিবার দুই দেশের পররাষ্ট্র সচিবের বৈঠকের পর বাংলাদেশের পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন বলেন, ‘‘করোনাকালের অর্থনৈতিক ও অন্যান্য বিষয়ে সম্পর্ক কীভাবে এগিয়ে নেওয়া যায়, সেটি নিয়ে বিশদ আলোচনা করেছি৷ আমাদের সম্পর্কে যে অপ্রীতিকর বিষয়গুলো আছে, সেগুলো নিয়েও আলোচনা করেছি৷ সীমান্ত হত্যা নিয়ে আলোচনা করেছি৷ আগামী মাসে আমরা চেষ্টা করবো বিজিবি ও বিএসএফ মহাপরিচালক পর্যায়ে বৈঠক করার৷ এ বছর প্রথম সাত মাসে সীমান্ত হত্যার সংখ্যাটি বিভিন্ন সময়ের তুলনায় বেড়ে গেছে এবং এ বিষয়ে আমাদের উদ্বেগ প্রকাশ করেছি৷’’

তবে এই সফর আরো বেশি গুরুত্বপূর্ণ হবে বলে মনে করেছিলেন বাংলাদেশের কূটনীতিকরা৷ তারা মনে করেন, আসলে চীন ইস্যুতে ভারতে সঙ্গে একটি ‘আনইজি’ পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে৷ সেটা দূর করতেই ভারতীয় পররাষ্ট্র সচিবের হঠাৎ ঢাকায় আসা৷ বিশেষ করে বাংলাদেশে চীনা বিনিয়োগ এবং বাংলাদেশের জন্য আরো কিছু চীনা সুবিধা ভারতকে ‘উদ্বিগ্ন’ করে তোলে৷ তবে এই সফরে সেই পরিস্থিতির অবসান হয়েছে কিনা তা বলা যাচ্ছে না৷ কিন্তু ভারত যে বাংলাদেশকে গুরুত্ব দিচ্ছে তা বোঝা যাচ্ছে বলে মনে করেন কূটনীতিকরা৷ সাবেক রাষ্ট্রদূত মেজর জেনারেল (অব.) শহীদুল হক মনে করেন, ‘‘ভারতের সাথে এখন প্রতিবেশীদের সম্পর্ক খারাপ৷ তারা নানা দিক দিয়ে চাপে আছে৷ তাই ভারত হয়তো সম্পর্কের উন্নয়ন চায়৷ কিন্তু এই সফরে কতটা অগ্রগতি হলো তা বোঝা যাচ্ছে না ৷ কারণ, তিনি প্রধানমন্ত্রীর কাছে নরেন্দ্র মোদীর কী বার্তা তিনি নিয়ে এসেছেন তা তো এখনো স্পষ্ট নয়৷’’

তিনি বলেন, ‘‘প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করা থেকে শুরু করে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা না হওয়া- এসব মিলিয়ে আমার মনে হয়েছে পরিষ্কার কোনো মেসেজ অন্তত আমরা পাইনি৷ দুই পররাষ্ট্র সচিব করোনা ভ্যাকসিনসহ আরো কিছু বিষয়ে যে কথা বলেছেন তা সৌজন্য কথাবার্তা বলেই আমার মনে হয়েছে৷ কোনো চুক্তি বা যৌথ বিবৃতিও আমরা দেখিনি৷’’

সাবেক পররাষ্ট্র সচিব মো. তৌহিদ হোসেন মনে করেন, করোনা ভ্যাকসিন যদি ভারত আগে বাংলাদেশকে দেয় তাতে খারাপ কী? এটাতো একটা সাফল্য৷ করোনা ভ্যাকসিন বাংলাদেশ যদি আগে পায় সেটা ভালো৷ তবে এটাকে এই ‘রুটিন আলোচনার’ সফর বলে তিনি মনে করেন না৷ তিনি বলেন, ‘‘হঠাৎ করে একদিন আগে সিদ্ধান্ত নিয়ে ঢাকায় চলে আসা কোনো রুটিন আলোচনার জন্য বলে আমি মনে করি না৷ এটার ভিতরে একটা রহস্য আছে৷ হতে পারে বাংলাদেশ ভারতের মধ্যে যে আনইজি পরিস্থিতি চলছে সেটা স্বাভাবিক করার বার্তা নিয়ে তিনি এনেছেন৷ তারপরও এটা আমার অনুমান, কারণ, প্রধানমন্ত্রীর সাথে তিনি কী বিষয় নিয়ে কথা বলেছেন, কোনো বার্তা নিয়ে এসেছেন কিনা তা তো আমরা জানি না৷ এটা প্রকাশ না করলে আমরা জানবোও না৷’’

তার মতে, ‘‘পরিস্থিতির কতটা উন্নতি হয়েছে তা এখন বোঝা যাবে না৷ ভারত যা আশা করে তা পুরণ না-ও হতে পারে৷ আমার কাছে অনেক কিছুই স্বাভাবিক লাগেনি৷’’ সূত্র : ডয়চে ভেলে
শীর্ষনিউজ/এসএসআই