সোমবার, ১৬-ডিসেম্বর ২০১৯, ০৮:২৮ অপরাহ্ন
  • আইসিটি
  • »
  • চাঁদে পা ফেলতে পারলো না ভারতের ‘চন্দ্রযান-২’

চাঁদে পা ফেলতে পারলো না ভারতের ‘চন্দ্রযান-২’

shershanews24.com

প্রকাশ : ১৫ জুলাই, ২০১৯ ০৬:৪৭ অপরাহ্ন

শীর্ষনিউজ ডেস্ক: কারিগরি সমস্যার কারণে ভারতের ‘চন্দ্রযান-২’ এর যাত্রা স্থগিত করা হয়েছে। উৎক্ষেপণের নির্ধারিত সময়ের ৫৬ মিনিট আগে অভিযানটি স্থগিত করা হয়।
স্থানীয় সময় রাত ২টা ৫১ মিনিটে অন্ধ্রপ্রদেশ রাজ্যের শ্রীহরিকোটার সতীশ ধাওয়ান মহাকাশ স্টেশন থেকে চন্দ্রযান-২ এর উৎক্ষেপণের কথা ছিল। যাত্রা শুরুর নির্ধারিত সময়ের ২০ ঘণ্টা আগে রোববার স্থানীয় সময় সকাল ৬টা ৫১ মিনিট থেকে এ অভিযানের কাউন্টডাউন শুরু হয়েছিল। কিন্তু ত্রুটি ধরা পড়ায় উৎক্ষেপণের ৫৬ মিনিট ২৪ সেকেন্ড আগে মিশনটি স্থগিত করা হয়েছে।
ভারতের মহাকাশ সংস্থার কর্মকর্তারা জানান, শিগগিরই উৎক্ষেপণের নতুন একটি তারিখ নির্ধারণ করা হবে।
তিন দশমিক ৮ টন ভারি মহাকাশযানটিকে বহন করে কক্ষপথে নিয়ে যেতে ভারতের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা (ইসরো) তাদের সবচেয়ে শক্তিশালী রকেট জিএসএলভি এমকে থ্রি ব্যবহার করার প্রস্তুতি নিয়েছিল।

৬৪০ টন ওজনের, ১৫ তলা সমান উচ্চতার এ রকেটের নাম দেয়া হয়েছে ‘বাহুবলী’। এই রকেটটিতেই ত্রুটি ধরা পড়ে। রকেট থেকে জ্বালানি লিক করছে বলে ইসরোর বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন।
এ মহাকাশ অভিযান সফল হলে ভারত হবে চন্দ্রজয়ী চতুর্থ দেশ। এখন পর্যন্ত কেবল রাশিয়া (সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়ন), যুক্তরাষ্ট্র ও চীন সংক্ষিপ্ত এ তালিকায় নিজেদের নাম লিখিয়েছে।
ভারতের মহাকাশ গবেষণা সংস্থার (ইসরো) বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, অত্যন্ত শক্তিশালী, সর্বাধুনিক ‘জিএসএলভি-মার্ক-৩’ রকেটের পিঠে চেপে রওনা হবে চন্দ্রযান-২।
যাতে থাকবে একটি ‘অরবিটার’, যা চাঁদের বিভিন্ন কক্ষপথে থেকে প্রদক্ষিণ করবে। চন্দ্রযান-২-এ থাকবে একটি ল্যান্ডার ‘বিক্রম’। থাকবে একটি রোভারও।
যার নাম ‘প্রজ্ঞান’, যা চাঁদের পিঠে বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে-চরে বেড়াবে। ভারতের আগে মাত্র তিনটি দেশ রোভার পাঠাতে পেরেছে চাঁদে- রাশিয়া (সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়ন), আমেরিকা ও চীন।
দেশটির মহাকাশ গবেষণা সংস্থা ইসরো জানিয়েছে, উৎক্ষেপণের ৫২ দিনের মাথায় চাঁদের পিঠে পা ছোঁয়াবে ল্যান্ডার ‘বিক্রম’।

নামার সঙ্গে সঙ্গেই সেই ল্যান্ডার থেকে বেরিয়ে আসবে খুবই ছোট একটি রোভার ‘প্রজ্ঞান’, যার ওজন মাত্র ২০ কিলোগ্রাম। আর চন্দ্রযান-২-এর সার্বিক ওজন ৩ হাজার ৮৫০ কিলোগ্রাম। ল্যান্ডারটি নেমে আসার সময় চন্দ্রযান-২-এর অরবিটারটি চাঁদের পিঠ (লুনার সারফেস) থেকে থাকবে মাত্র ১০০ কিলোমিটার উপরে।
চন্দ্রযান-২ পাঠানোর উদ্দেশ্য, চাঁদের পিঠের বালিকণায় মিশে রয়েছে কোন কোন মৌল ও খনিজ পদার্থ আর তা রয়েছে কী পরিমাণে, তা জানা।
সেই মৌল বা খনিজগুলো নিষ্কাশনের যোগ্য কি না, তা যাচাই করা। যে স্বপ্নটা প্রথম দেখেছিলেন ভারতের প্রয়াত সাবেক রাষ্ট্রপতি এপিজে আবদুল কালাম।
শীর্ষকাগজ/জে