সোমবার, ২৩-সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১১:৩৩ পূর্বাহ্ন

কাশ্মীর নিয়ে ট্রাম্পকে ফোন করে কী বললেন মোদি?

shershanews24.com

প্রকাশ : ১৯ আগস্ট, ২০১৯ ১০:৫৪ অপরাহ্ন

শীর্ষনিউজ ডেস্ক: কাশ্মীরের চলমান সংকট নিয়ে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের পর এবার মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে কথা বলেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।
ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি জানিয়েছে, কাশ্মীরের স্বায়ত্বশাসন বাতিলের পর উদ্ভূত পরিস্থিতি এবং বিষয়টি নিয়ে পাকিস্তানের ভূমিকার বিষয়ে ট্রাম্পের সঙ্গে কথা বলেছেন তিনি। কাশ্মীরে ৩৭০ ধারা বাতিলের পর ট্রাম্পের সঙ্গে এটিই মোদির প্রথম ফোনালাপ।
৩০ মিনিটের ওই ফোনালাপে মার্কিন প্রেসিডেন্টের সঙ্গে কাশ্মীর ইস্যুর পাশাপাশি দ্বিপাক্ষিক এবং আঞ্চলিক বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়েছে বলেও সূত্রের বরাত দিয়ে জানিয়েছে এনডিটিভি। 
এ বিষয়ে ভারত সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, নরেন্দ্র মোদি মার্কিন প্রেসিডেন্টকে হিংসা ও সীমান্ত সন্ত্রাস বন্ধে আপোষহীনতার কথা বলেছেন। 
এর আগে গত শুক্রবার কাশ্মীর নিয়ে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ (ইউএনএসসি) বৈঠকে বসার আগে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে কথা বলেছিলেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।
ফোনালাপে ডোনাল্ড ট্রাম্পকে ইমরান খান আশ্বস্ত করতে সক্ষম হয়েছেন বলেও দাবি করেছিলেন পাক পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাহমুদ কোরেশি।
কাশ্মীরের সাম্প্রতিক সংকট নিয়ে উভয়পক্ষকে শুরু থেকে আলোচনার আহ্বান জানিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। 
গত ৫ আগস্ট নরেন্দ্র মোদির সরকার কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা (ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ) বাতিল করে দিয়েছে। একই সঙ্গে জম্মু-কাশ্মীরকে ভেঙে দুটি অঞ্চল কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল গঠন করা হয়েছে।
কাশ্মীরী সংগঠনগুলো বলেছে, জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিলের অর্থ হলো সেখানকার অধিবাসীদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা। আইনটি বাস্তবায়নের লক্ষ্যে উপত্যাটিকে কয়েক দিন আগে থেকেই কড়া নিরাপত্তা বলয়ে মুড়ে ফেলা হয়েছে।
সংবিধানের ৩৭০ ধারা বাতিলের কারণে স্বায়ত্বশাসন হারায় কাশ্মীরিরা। স্থানীয় বাসিন্দা নন এমন নাগরিকদের সম্পত্তি কেনা ও বিয়ে করার সুযোগ করে দিয়েছে ভারত। এর প্রতিবাদে ফুঁসে উঠেছে কাশ্মীরি জনগণ। তারা রাস্তায় নেমে বিক্ষোভ করে। অবরোধও চলছে।
এদিকে ওই দিনটি থেকে কাশ্মীরের টেলিফোন লাইন, ইন্টারনেট ও টেলিভিশন নেটওয়ার্ক বন্ধ করে রেখেছে দিল্লি এবং লোকজনের অবাধ চলাচল ও জমায়েতের ওপর নিষেধাজ্ঞাও আরোপ করেছে। দুইজন সাবেক মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতি ও ওমর আব্দুল্লাহসহ কয়েকশ কাশ্মীরি নেতাকর্মীকে আটক করা হয়েছে।
এই মুহূর্তে ভারত নিয়ন্ত্রিত জম্মু-কাশ্মীর বিশ্বের সবচেয়ে সামরিকীকৃত এলাকায় পরিণত হয়েছে। সেনাবাহিনী, আধা-সামরিক বাহিনী ও পুলিশ সদস্য মিলিয়ে সেখানে ৭ লক্ষাধিক নিরাপত্তাবাহিনীর সদস্য মোতায়েন রয়েছে।
অস্থায়ী কারাগার বানানো হয়েছে হোটেল, গেস্ট হাউস, সরকারি ও বেসরকারি বিভিন্ন ভবনকে। কাশ্মীরের পুরো উপত্যকাটি যেন পরিণত হয়েছে একটি কারাগারে।
শীর্ষনিউজ/জে