শনিবার, ০৬-জুন ২০২০, ০৫:১২ অপরাহ্ন
  • আন্তর্জাতিক
  • »
  • মানবতার সেবক ডাঃ হাইদি যে ভাবে স্ত্রী সন্তান থেকে শেষ বিদায় নিলেন

মানবতার সেবক ডাঃ হাইদি যে ভাবে স্ত্রী সন্তান থেকে শেষ বিদায় নিলেন

shershanews24.com

প্রকাশ : ২৮ মার্চ, ২০২০ ১০:২১ অপরাহ্ন

শীর্ষনিউজ ডেস্ক : ইন্দোনেশিয়ার তরুণ চিকিৎসক ডাঃ হাইদি আলী। হাসপাতালের চিকিৎসকদের অনেকে যখন করোনা ভাইরাস ভয়ে কাবু, ঠিক তখনি ডা. হাইদি আলী অসহায় রোগিদের পাশে গিয়ে দাঁড়ান। সাধ্যমতো চিকিৎসা সেবা দিয়ে যান। একজন নার্স এসে তাকে প্রশ্ন করলেন স্যার দিনরাত এতো কষ্টের কি দরকার? জবাব দিলেন এভাবেঃ আমাদের কাজতো মানুষের বিপদে পাশে থাকা। অনেক আশা নিয়ে অসুস্থ মানুষ গুলো আমাদের কাছে এসেছে। তাঁদের ফেলে যাই কি করে! তারাতো আমারই মা,বাবা,ভাই অথবা বোন হতে পারতো। হতে পারতো আমার স্ত্রী বা সন্তান।
রোগিদের সেবা দিতে দিতে তিনিই হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়েন। টেস্টে দেখা গেল তাঁর শরীরে প্রবেশ করেছে ভয়ংকর করোনা ভাইরাস। মৃত্যুর খুব কাছাকাছি চলে গেলেন তিনি।
মৃত্যুর কয়েক ঘন্টা আগে বাড়িতে আসলেন স্ত্রী ও বাচ্চাদের শেষ বারের মতো দেখতে। মুল ফটকের কাছে আসলেন স্ত্রী ও দুই সন্তান। বাচ্চারা বাবা বাবা বলে ছুটে গেলন বাবার কাছে। না অন্য দিনের মতো লাফ দিয়ে বাবার কোলে উঠতে পারেনি আজ। বাবা ক্যান্ডির প্যাকেটও দিতে পারে নি সন্তানদের হাতে। ৬ ফুট দুর থেকে স্ত্রী ও বাচ্চাদের উদ্দেশ্যে হাত নাড়ালেন বাট স্পর্শ করলেন না। বললেন তোমরা আমার জন্য দোয়া করো। ভালো থেকো। মায়ের কথা শুনো সবসময়। বেঁচে থাকলে দেখা হবে। না হয় আমাকে ক্ষমা করে দিও।
প্রিয়তমা স্ত্রী শেষ ছবি তুলে রাখেন নিজ মোবাইলে। বিদায় নিতে নিতে স্ত্রীকে বললেন তুমি আমাকে ক্ষমা করে দিও। তোমাদের জন্য কিছু করে যেতে পারলাম না। আমাদের সন্তানদের দিকে খেয়াল রেখো। ওদের যত্ন করো। আজ থেকে তুমিই ওদের মা ও বাবা। দু'জনেরই দু' চোখ বেয়ে গড়িয়ে পড়লো অশ্রু। হাত নেড়ে বিদায় জানালেন কলিজার টুকরো দুই সন্তান ও স্ত্রীকে। ছুটে গেলেন আবার হাসপাতালে। কয়েক ঘন্টা পর তিনি বিদায় জানালেন বিশ্বকে।


এক বুক কষ্ট নিয়ে বাড়ির গেট থেকে ফিরে গেলেন ডাঃ হাইদি। তিনি নিজের বুকের সাথে বাচ্চাদের শেষ বারের মতো স্পর্শও করতে পারেননি। দেখে যেতে পারেন নি তাঁর অনাগত সন্তানকে। তিনি চান নি তাঁর গর্ভবতী স্ত্রী ও সন্তানরা করোনায় আক্রান্ত হোক।
শীর্ষনিউজ