শুক্রবার, ২৯-মে ২০২০, ০৮:২১ অপরাহ্ন

স্লোভেনিয়ায় করোনায় আক্রান্ত আরও ৫৬ জন

shershanews24.com

প্রকাশ : ২৯ মার্চ, ২০২০ ১০:৩৮ অপরাহ্ন

শীর্ষনিউজ, স্লোভেনিয়া : স্লোভেনিয়ায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন আরও ৫৬ জন। এ নিয়ে দেশটিতে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৬৮৪ জনে। শনিবার (২৮ মার্চ) স্লোভেনিয়ার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের প্রকাশিত প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

স্লোভেনিয়ার সংবাদমাধ্যমে বলা হয়েছে, গত পাঁচ দিনে দেশটিতে এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন আরও ৬ জন। ফলে মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে নয়ে।

করোনাভাইরাস প্রথম শনাক্ত হওয়ার পর গত ১৯ মার্চ থেকেই স্লোভেনিয়াতে জরুরি অবস্থা জারি করা হয়। এটি এখনো বলবৎ আছে।

করোনার বিস্তাররোধে সব ধরনের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গত ১৬ মার্চ থেকে পুরোপুরি বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। বলা হচ্ছে, ১৭ এপ্রিল পর্যন্ত সব প্রতিষ্ঠানও বন্ধ রাখা হবে। বন্ধ রাখা হয়েছে সব ধরনের বাস ও ট্রেন সার্ভিস চলাচল। রাজধানী লুবলিয়ানার ইয়োজে পুচনিক ইন্টারন্যাশনাল এয়ারপোর্ট থেকে সব ধরনের বিমান চলাচলও স্থগিত রাখা হয়েছে। তবে এখনো স্লোভেনিয়ার বেশ কিছু প্রতিষ্ঠান খোলা রাখা হয়েছে।

স্থানীয় পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, নির্দিষ্ট দূরত্ব বজায় না রেখে যদি একই স্থানে পাঁচ জনের অধিক জমায়েত হন, তাহলে প্রত্যককে ৪০০ ইউরো করে জরিমানা করা হবে। যে কোনো জরুরি প্রয়োজনে ১১২, ০৮০১৪০৪ কিংবা +৩৮৬৩১৬৪৬৬১৭ নম্বরে কল করতে বলা হয়েছে।

এছাড়া স্লোভেনিয়ায় বসবাসরত অন্য দেশের নাগরিকদেরকে নিজ দেশের নিকটস্থ অ্যাম্বাসি কিংবা কনস্যুলেট অফিসের সাথেও যে কোনো প্রয়োজনে যোগাযোগ করার কথা বলা হয়েছে। প্রতিবেশী ইতালির মতো ক্রোয়েশিয়া এবং হাঙ্গেরির সাথেও স্লোভেনিয়ার সীমান্ত সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে রাখা হয়েছে। কিছু নির্দিষ্ট পয়েন্ট ছাড়া বাকি সব ক্ষেত্রে অস্ট্রিয়ার সাথে স্লোভেনিয়ার সীমান্ত আপাতত বন্ধ রয়েছে।

শনিবার স্থানীয় সময় সন্ধ্যায় এক রেডিও বার্তায় দেশটির অর্থমন্ত্রী আন্দ্রেই শিরচেলির পক্ষ থেকে বলা হয়, এ পরিস্থিতিতে যারা বিশেষভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন তাদের পুনর্বাসনের জন্য বেশ কিছু প্রস্তাবনা তৈরি করেছে সরকার। আগে প্রতিমাসে সরকারকে ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের ৪০০ ইউরো করে দিতে হলেও এ পরিস্থিতিতে তা দিতে হবে না। শিক্ষার্থীদের এপ্রিল এবং মে মাসে ৩০০ ইউরো করে আর্থিক অনুদান দেয়া হবে। যারা কাজে বের হতে পারছেন না তাদের প্রতি মাসে ৭০০ ইউরো করে অর্থ সাহায্য দেয়া হবে। একইসাথে কৃষক এবং পেনশনভোগীদের বিশেষভাবে সহযোগিতা করার জন্য বেশ কিছু পদক্ষেপ নেয়া হবে। এ প্রস্তাবনা আগামী সোমবার কিংবা মঙ্গলবার সংসদে তোলা হবে।

ইউনিভার্সিটি অব লুবলিয়ানায় মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে অধ্যয়নরত বাংলাদেশি শিক্ষার্থী মুশফিক হাসান জানান, করোনাভাইরাস স্লোভেনিয়াতেও ছড়িয়ে পড়ায় তিনি বেশ শঙ্কিত। স্লোভেনিয়ার সরকার সাময়িক সময়ের জন্য সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করায় তিনি খানিকটা অস্বস্তিতে পড়েছেন। যদিও বর্তমানে বিভিন্ন শিক্ষা-প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে অনলাইনে শিক্ষা কার্যক্রম অব্যাহত রাখার ঘোষণা দেয়া হয়েছে, তারপরও ইউনিভার্সিটি খোলা থাকলে যে সুবিধাগুলো পাওয়া যেতো, সে সুবিধাগুলো থেকে বঞ্চিত হতে হচ্ছে। এছাড়া সামগ্রিক পরিস্থিতির উন্নতি না ঘটলে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে বর্তমান সেমিস্টার শেষ করতে পারাটা সম্ভব কি-না তা নিয়েও তিনি বেশ সন্দিহান।

স্লোভেনিয়ায় বসবাসরত বাংলাদেশি আবু তৈয়্যব জানান, এ পরিস্থিতিতে তিনিও বেশ উদ্বিগ্ন। বাংলাদেশিদের অনেকে এ সময় কর্মহীন হয়ে পড়েছেন। ফলে তাদের মধ্যে হতাশা বিরাজ করছে। কেউই সঠিকভাবে বলতে পারছেন না সামগ্রিক পরিস্থিতি কবে উন্নতি লাভ করবে।
শীর্ষনিউজ/এসএসআই