শনিবার, ১৬-নভেম্বর ২০১৯, ০৬:২৭ পূর্বাহ্ন
  • জাতীয়
  • »
  • বিল না পাওয়ায় গর্ত খুঁড়ে দিয়েছেন ইউপি সদস্য! 

বিল না পাওয়ায় গর্ত খুঁড়ে দিয়েছেন ইউপি সদস্য! 

shershanews24.com

প্রকাশ : ১২ জুন, ২০১৯ ০৫:০৮ অপরাহ্ন

শীর্ষকাগজ, ঢাকা : রাস্তার নির্মাণকাজের বিল না পাওয়ায় রাস্তায় বিরাট গর্ত করে যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দিয়েছেন এক ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) সদস্য। তিনি নাটোরের বাগাতিপাড়া উপজেলার পাঁকা ইউনিয়নের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য বাদশা মিয়া। রাস্তায় গর্ত করার বিষয়টি তিনি স্বীকারও করেছেন। গর্তের কারণে গতকাল মঙ্গলবার সকাল থেকে ওই রাস্তায় যানবাহন চলাচল করতে পারছে না।

পাঁকা ইউপি সূত্রে জানা যায়, ২০১৮-১৯ অর্থবছরের স্থানীয় সরকার বিভাগের (এলজিএসপি) একটি প্রকল্পের আওতায় উপজেলার চকগোয়াস কুলপাড়ায় ৬০ মিটার রাস্তা নির্মাণের কাজ শেষ করেন ৪ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য বাদশা মিয়া। রাস্তাটি চূড়ান্ত পরিদর্শনের অপেক্ষায় রয়েছে। হঠাৎ করে গতকাল সকালে এলাকাবাসী দেখতে পান, ওই রাস্তার মাঝে তিন ফুট গভীর গর্ত করা হয়েছে। এলাকাবাসী এর কারণ জানতে চাইলে ওই ইউপি সদস্য জানান, তিনি রাস্তা নির্মাণকাজের বিল চেয়ে পাচ্ছেন না। উপজেলা প্রকল্প অফিস থেকে বলা হচ্ছে, চূড়ান্ত পরিদর্শন না হওয়া পর্যন্ত বিল দেওয়া যাবে না। যানবাহন চলাচলের কারণে নতুন রাস্তাটি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। অনেক দিন পর পরিদর্শন করা হলে নির্মাণকাজ দেখে সন্তুষ্ট হতে পারবেন না পরিদর্শক দল। তাই বিল না পাওয়া পর্যন্ত তিনি ওই রাস্তায় যানবাহন চলাচল বন্ধ রাখার জন্য কর্মসৃজন প্রকল্পের শ্রমিকদের দিয়ে রাস্তার মাঝে গর্ত করেছেন।

বিরাট গর্তের কারণে যানবাহন চলাচল করতে পারছে না ওই রাস্তায়। শুধু হেঁটে যাতায়াত করছেন স্থানীয় লোকজন। স্থানীয় একজন শিক্ষক পরিচয় প্রকাশ না করার শর্তে জানান, জনপ্রতিনিধি হয়ে জনদুর্ভোগ সৃষ্টি করা অন্যায়। এ জন্য ওই সদস্যের শাস্তি হওয়া দরকার।

রাস্তায় গর্ত করার কথা স্বীকার করে ইউপি সদস্য বাদশা মিয়া বলেন, ‘রাস্তা পরিদর্শনে বিলম্বের ফলে নতুন রাস্তাটি প্রতিনিয়ত ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। এতে রাস্তার কাজ নিয়ে প্রশ্ন উঠবে। এই পরিস্থিতি এড়ানোর জন্য আমি সাময়িকভাবে গর্ত করিয়েছি। পরিদর্শন শেষে কাজের বিল পেলে গর্ত ভরাট করে আবার রাস্তাটি চালু করা হবে।’

এ ব্যাপারে ১ নম্বর পাঁকা ইউপি চেয়ারম্যান আমজাদ হোসেন বলেন, তিনি লোকমুখে ঘটনাটি শুনেছেন। ঘটনার তদন্ত করে দ্রুত জনদুর্ভোগ লাঘবের ব্যবস্থা নেবেন।
শীর্ষকাগজ/এসএসআই