রবিবার, ২১-জুলাই ২০১৯, ০৭:২৭ পূর্বাহ্ন
  • অফিস-আদালত
  • »
  • নুসরাত হত্যা: অধ্যক্ষ সিরাজসহ ১৬ জনের সম্পৃক্ততার প্রমাণ

নুসরাত হত্যা: অধ্যক্ষ সিরাজসহ ১৬ জনের সম্পৃক্ততার প্রমাণ

shershanews24.com

প্রকাশ : ২৮ মে, ২০১৯ ০১:১০ অপরাহ্ন

শীর্ষকাগজ, ঢাকা: মাদ্রাসা ছাত্রী নুসরাত হত্যা মামলায় অধ্যক্ষ সিরাজ উদ দৌলা, আওয়ামী লীগ নেতা রুহুল আমিন ও কাউন্সিলর মাকসুদসহ ১৬ জনের সম্পৃক্ততার প্রমাণ পেয়েছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবি আই)।এই ১৬ জনকে দায়ী করে ৭২২ পৃষ্টার চার্জশিট চূড়ান্ত করা হয়েছে। অভিযোগপত্র আগামীকাল বুধবার আদালতে দাখিল করা হতে পারে।
মঙ্গলবার রাজধানীর উত্তরায় পিবি আই কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানানো হয়।এসময় বলা হয়, নুসরাত হত্যা মামলার চার্জশিট চূড়ান্ত করা হয়েছে। এ ঘটনায় ১৬ জনের সম্পৃক্ততার প্রমাণ মিলেছে।সরাসরি হত্যাকাণ্ডে অংশ না নিলেও হত্যার মূল দায় অধ্যক্ষ সিরাজের।
মামলার তদন্ত সংস্থা পিবি আই’র সংবাদ সম্মেলনে আরো জানানো হয়, নুসরাত হত্যা মামলায় এ পর্যন্ত ১২ আসামি দায় স্বীকার করে আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছে।এর মধ্যে মাদ্রাসা অধ্যক্ষ সিরাজ উদ দৌলাও রয়েছেন।
এদিকে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলায় ফেনীর সোনাগাজী থানার সাবেক ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোয়াজ্জেম হোসেনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছেন সাইবার ট্রাইব্যুনাল। তদন্তে মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফির জবানবন্দি ইন্টারনেটে ছড়ানোর ‘প্রমাণ’ পাওয়ায় সোমবার ট্রাইব্যুনালের বিচারক মোহাম্মদ আস সামছ জগলুল হোসেন এ আদেশ দেন।
এর আগে রোববার তার বিরুদ্ধে সব অভিযোগের সত্যতা পাওয়ার কথা জানায় পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবি আই)।
ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমনের ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে করা মামলার তদন্ত শেষে প্রতিবেদন আদালতে দাখিল করেছেন পিবি আই সদর দফতরের সিনিয়র এএসপি রিমা সুলতানা। তিনি জানান, তদন্ত শেষে রোববার সাইবার আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করা হয়েছে।
তদন্তের সঙ্গে যুক্ত কর্মকর্তারা জানান, গত ২৭ মার্চ নুসরাত জাহান রাফিকে সোনাগাজী ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ উদ দৌলা শ্রেণিকক্ষে নিয়ে যৌন নিপীড়ন করেন। এমন অভিযোগ উঠলে রাফিকে থানায় ডেকে নেন তৎকালীন ওসি মোয়াজ্জেম হোসেন। ওসি নিয়ম ভেঙে জেরা করার সময় রাফির বক্তব্য ভিডিও করেন তিনি। এ সময় দুজন পুরুষের কণ্ঠ শোনা গেলেও সেখানে রাফি ছাড়া অন্য কোনো নারী বা তার আইনজীবী ছিলেন না। থানার ওসির সামনে অঝোরে কাঁদছিলেন রাফি।
ওসি যখন ভিডিও করছিলেন, তখন রাফি তার মুখ দুই হাতে ঢেকে রেখেছিলেন। ওই সময় ওসি আপত্তি করে বলেন, ‘মুখ থেকে হাত সরাও, কান্না থামাও।’ এ সময় তিনি রাফিকে উদ্দেশ করে আরও বলেন, ‘এমন কিছু হয়নি যে এখনও তোমাকে কাঁদতে হবে।’ ভিডিওটি প্রকাশ হলে অধ্যক্ষ সিরাজউদ্দৌলা ও তার সহযোগীদের সঙ্গে ওসির সখ্যের বিষয়টি স্পষ্ট হয়। ভিডিওতে দেখা গেছে, ওসি মোয়াজ্জেম আপত্তিকর ভাষায় একের পর এক প্রশ্ন করছিলেন রাফিকে। পরবর্তী সময়ে ওসির মোবাইল থেকে ওই ভিডিও ফেসবুক ও ইউটিউবসহ বিভিন্ন মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে।
এদিকে পুলিশ সদর দফতরের তদন্ত প্রতিবেদনে উঠে এসেছে, ওসি মোয়াজ্জেম হোসেন রাফিকে হেনস্তা করেও ক্ষান্ত হননি। রাফির গায়ে দুর্বৃত্তরা কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়ার ঘটনাকে তিনি আত্মহত্যা বলে প্রচার করেছিলেন। এ কাজে এসআই ইকবাল হোসেন ওসিকে সহায়তা করেন। এ ঘটনায় ওসিকে সাময়িক বরখাস্ত করে রংপুর রেঞ্জে সংযুক্ত করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলাও হয়েছে। এদিকে রাফি হত্যার ঘটনায় ফেনীর তৎকালীন পুলিশ সুপার (এসপি) জাহাঙ্গীর আলম সরকারেরও গাফিলতির প্রমাণ পেয়েছে পুলিশ সদর দফতরের তদন্ত কমিটি। তাকেও বদলি করে পুলিশ সদর দফতরে সংযুক্ত করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় তদন্ত চলমান রয়েছে।
শীর্ষকাগজ/জে