বৃহস্পতিবার, ১৭-অক্টোবর ২০১৯, ০৭:৫৭ পূর্বাহ্ন
  • অফিস-আদালত
  • »
  • র‌্যাবের পর জি কে শামীমকে রিমান্ডে নিল সিআইডি

র‌্যাবের পর জি কে শামীমকে রিমান্ডে নিল সিআইডি

shershanews24.com

প্রকাশ : ০৭ অক্টোবর, ২০১৯ ১১:০৪ অপরাহ্ন

শীর্ষনিউজ, ঢাকা: যুবলীগের সমবায় বিষয়ক সম্পাদক ঠিকাদার এসএম গোলাম কিবরিয়া শামীম ওরফে জি কে শামীমের গত ২ অক্টোবর দুই মামলায় নয় দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। যার মধ্যে অস্ত্র মামলায় চার দিন এবং মানি লন্ডারিং আইনের মামলায় পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

ওইদিন অস্ত্র মামলায় তদন্তকারী তদন্ত কর্মকর্তা র‌্যাব-১ এর উপপরিদর্শক (এসআই) শেখর চন্দ্র মল্লিক আদালত থেকে চার দিনের রিমান্ডে নিয়ে যান।

ওই রিমান্ড শেষে আজ সোমবার তাকে আদালতে হাজির করে কারাগারে পাঠানোর আবেদন করেন। শুনানি শেষে সিএমএম আদালত জামিনের আবেদন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

অন্যদিকে এদিন গত ২ অক্টোবর মঞ্জুরকৃত মানি লন্ডারিং আইনের মামলায় পাঁচ দিনের রিমান্ডে নেওয়ার অনুমতির জন্য সিআইডি আবেদন করে। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সিআইডির সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার আবু সাঈদ এ করেন। যা ঢাকা মহানগর হাকিম সাদবীর ইয়াছির আহসান চৌধুরীর অনুমতি প্রদান করেন।

প্রসঙ্গত, এর আগে গত ২১ সেপ্টেম্বর জিকে শামীমের অস্ত্র মামলায় পাঁচ দিন এবং মাদক মামলায় পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

মানি লন্ডারিং আইনের মামলায় বলা হয়, গত ২০ সেপ্টেম্বর গুলশানের নিকেতনে নিজ কার্যালয় থেকে রিমান্ডে থাকা আসামী জি কে শামীমসহ সাত দেহরক্ষীকে আটকের সময় নগদ এক কোটি ৮১ লাখ টাকা, নয় হাজার ইউএস ডলার, ৭৫২ সিঙ্গাপুর ডলার, জি কে শামীমের মায়ের নামে ট্রাস্ট ব্যাংক নারায়নগঞ্জ শাখায় ২৫ কোটি টাকার করে চারটি এবং ২৭ লাখ ৬০ হাজার টাকার একটি ও শাহজালাল ইসলামী ব্যাংক মহাখালী শাখায় ১০ কোটি টাকা করে চারটি এফডিআর, শামীমের নামীয় টাস্ট ব্যাংক কেরানীগঞ্জ শাতায় ২৫ কোটি টাকার একটি এফডিআর, জব্দ করা হয়। এছাড়া ৩৪টি ব্যাংক একাউন্টের চেকবই উদ্ধারও হয়।

মানি লন্ডারিং আইনের মামলায় আরও বলা হয়, আসামিদের গ্রেপ্তারের সময় বিপুল পরিমান অর্থের উৎস সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করলে তারা কোনো সদুত্তর প্রদান বা বৈধ কোনো কাগজপত্র দেখাতে পারেনি। তারা উপস্থিত সাক্ষীদের সামনে এ বিপুল পরিমাণ অর্থ বিদেশে পাচার করার জন্য মজুদ রেখেছিল বলে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেদের সামনে স্বীকার করায় তাদের বিরুদ্ধে নায়েব সুবেদার মো. মিজানুর রহমান মামলাটি দায়ের করেন।
শীর্ষনিউজ/এসএসআই