সোমবার, ১৮-নভেম্বর ২০১৯, ০৯:২০ অপরাহ্ন
  • অফিস-আদালত
  • »
  • ধর্ষণের অভিযোগ থেকে খালাস পেয়েছেন এটিএম আজহার 

ধর্ষণের অভিযোগ থেকে খালাস পেয়েছেন এটিএম আজহার 

shershanews24.com

প্রকাশ : ৩১ অক্টোবর, ২০১৯ ০৯:৪৮ অপরাহ্ন

শীর্ষনিউজ, ঢাকা : মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় জামায়াতের সাবেক সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল এ টি এম আজহারুল ইসলামের বিরুদ্ধে ছয়টি অভিযোগ আনে প্রসিকিউশন। এর মধ্যে প্রথম অভিযোগ বাদে বাকি পাঁচটি অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছিল আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের রায়ে। সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের রায়েও প্রমাণিত হয়েছে চারটি অভিযোগ। এর মধ্যে ট্রাইব্যুনালের রায়ে দেয়া ধর্ষণের অভিযোগে ২৫ বছরের দণ্ড থেকে আপিলে খালাস পেয়েছেন এ টি এম আজহারুল ইসলাম। রায়ে এই যুদ্ধাপরাধীর মৃত্যুদণ্ড বহাল থাকলেও মামলায় আনা ধর্ষণের অভিযোগ থেকে রেহান পেলেন তিনি।

বৃহস্পতিবার (৩১ অক্টোবর) সকালে প্রসিকিউশনের আনা দুই, তিন ও চার নম্বর অভিযোগে বিচারপতিদের সংখ্যাগরিষ্ঠতার ভিত্তিতে মৃত্যুদণ্ড বহাল রেখেছেন আপিল বিভাগ।

অপরদিকে, ধর্ষণের দায়ে পাঁচ নম্বর অভিযোগে ২৫ বছরের দণ্ড থেকে খালাস পেয়েছেন আজহারুল ইসলাম। ছয় নম্বর অভিযোগে পাঁচ বছরের সাজা বহাল রয়েছে। তাতে বিচারপতিরা সর্বসম্মত মতামত দিয়েছেন।

আজ সকাল ৯টা ৭ মিনিটে প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বে আপিল বিভাগের চার সদস্যের বেঞ্চ তার মৃত্যুদণ্ড বহাল রেখে রায় ঘোষণা করেন। বেঞ্চের অপর তিন সদস্য হলেন-বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী, বিচারপতি জিনাত আরা ও বিচারপতি মো. নুরুজ্জামান।

ট্রাইব্যুনালের রায়ে সন্দেহাতীতভাবে পাঁচটি অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছিল। এর মধ্যে দুই, তিন ও চার নম্বর অভিযোগে তাকে মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দেয়া হয়। ধর্ষণের পাঁচ নম্বর অভিযোগে ২৫ বছর ও ছয় নম্বর অভিযোগে পাঁচ বছর কারাদণ্ডাদেশ দিয়েছিলেন ট্রাইব্যুনাল। এক নম্বর অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় খালাস পান তিনি।

রায়ের পর অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম রায়ের ব্যাখ্যা দিয়ে সাংবাদিকদের বলেন, মৃত্যুদণ্ডের তিন অভিযোগে আপিলের রায়ে সংখ্যাগরিষ্ঠ মতামতে বহাল আছে। অভিযোগগুলো হলো- ২, ৩ ও ৪। ৫ নম্বর অভিযোগ থেকে খলাস এবং ৬ নম্বর অভিযোগে পাঁচ বছরের সাজা বহাল আছে। কবে নাগাদ পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ হবে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, আশা করি শিগগিরই রায় প্রকাশ হবে।
শীর্ষনিউজ/এসএসআই