সোমবার, ১২-এপ্রিল ২০২১, ০৯:১২ অপরাহ্ন
  • শিক্ষা
  • »
  • হল বন্ধ, তিন থেকে ছয়গুণ বাড়তি অর্থে মেসে থাকছেন শিক্ষার্থীরা 

হল বন্ধ, তিন থেকে ছয়গুণ বাড়তি অর্থে মেসে থাকছেন শিক্ষার্থীরা 

shershanews24.com

প্রকাশ : ২৬ ফেব্রুয়ারী, ২০২১ ০৯:৫২ পূর্বাহ্ন

শীর্ষনিউজ, ঢাকা: আবাসিক হল বন্ধ থাকায় বাড়তি টাকায় মেসে থাকতে হচ্চে শিক্ষার্থীদের; অনেক ক্ষেত্রে থাকছে না পড়াশোনার পরিবেশও।
হল বন্ধ থাকায় তিন থেকে ছয়গুণ অর্থ খরচ করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের মেসে থাকতে হচ্ছে। যেগুলোর বেশিরভাগই বসবাসের অযোগ্য। চাকরিজীবীদের সঙ্গে কক্ষ ভাগাভাগি করায় নেই পড়াশোনার পরিবেশও। আবার হল খুলতে দেরি হবে জানার পর, বেড়ে গেছে ভাড়া, সঙ্গে আছে বাড়িওয়ালার দুর্ব্যবহারও।
হল বন্ধ বহুদিন হলো। এদিকে ছাত্র পড়ানো আছে। সেই টাকাতেই বাড়ির সংসার চলে। তাই মেস ছাড়া উপায় নেই। সরু সিড়িতে দুজন ধরেনা। দিনের কোনসময়েই সূর্য এখানে পৌঁছায় না। চারতলায় উঠে দেখা গেলো, সিড়ির মতোই রুমও ছোট। মেঝের পুরোটাই বিছানা। খাওয়া দাওয়া এখানেই।   
তারা জানায়, যেহেতু আমাদের ফ্যামিলিকে সাপোর্ট দিতে হয় তাই বাধ্য হয়েই আমাদের ঢাকাতে থাকতে হচ্ছে। আমাদের এই পরিবেশ খাপ খাওয়ানো অনেক কষ্টকর, কিন্তু আমাদের দেয়ালে পিঠ ঠেকে গেছে। আমাদের বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন আমার মতে তেমন কোন কারণই দেখাতে পারবে না যে কেন আমরা হলে থাকতে পারবো না।

অস্বাস্থ্যকর পরিবেশের পাশাপাশি অন্য ঝক্কিও আছে। বুয়া না আসলে পড়াশোনা বাদ। খাবারের ব্যবস্থা করতেই দিন পার। পর্যাপ্ত নিরাপত্তাও নেই।  

রাজধানীর লালবাগ, আজিমপুরসহ বিভিন্ন স্থানে ছেলে শিক্ষার্থীরা থাকতে পারলেও, ছাত্রীদের সবচেয়ে বড় ভরসা, নীলক্ষেতে এই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আবাসিক এলাকা। বাড়িওয়ালারাও তা জানেন। তাই হল বন্ধের সুযোগ নিয়ে, নিজেদের ইচ্ছেমতোন ভাড়া হাঁকছেন। 
তারা জানায়, এখানকার পরিবেশ খুবই অস্বাস্থ্যকর। পানি থেকে বিভিন্ন পোঁকা পাওয়া যাচ্ছে। কিন্তু তারপরও আমরা এসব খেতে বাধ্য হচ্ছি। এছাড়া আমাদের সঙ্গে অনেক খারাপ আচরণ করা হচ্ছে। ভাড়া আগে যেখানে দুই হাজার ছিল সেখানে চার হাজার করে নেয়া হচ্ছে।

শিক্ষামন্ত্রীর নির্দেশ আগামী ১৭ই মের আগে হল খুলবে না।  অর্থাৎ আরো আড়াই মাস এমন ভোগান্তি পোহাতে হবে শিক্ষার্থীদের।
শীর্ষনিউজ/এম