শনিবার, ২৪-জুলাই ২০২১, ০৯:৫৪ পূর্বাহ্ন
  • শিক্ষা
  • »
  • ভিকারুননিসার মাঠে গরুর হাট, অধ্যক্ষের অপসারণ দাবি

ভিকারুননিসার মাঠে গরুর হাট, অধ্যক্ষের অপসারণ দাবি

shershanews24.com

প্রকাশ : ১৯ জুলাই, ২০২১ ০৪:৩৩ অপরাহ্ন

শীর্ষনিউজ, ঢাকা : ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ কামরুন নাহারকে দায়িত্ব থেকে অপসারণের দাবি জানিয়েছে প্রতিষ্ঠানটির অভিভাবক ফোরাম। সোমবার (১৯ জুলাই) দুপুরে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) সাগর-রুনি মিলনায়তনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি জানানো হয়।

এ সময় ঘুষ নিয়ে ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের প্রধান ক্যাম্পাসে ও ক্যাম্পাসের প্রবেশপথে (সিদ্ধেশ্বরী) কোরবানির গরুর হাট বসানোর অভিযোগ তোলা হয় অধ্যক্ষ কামরুন নাহারের বিরুদ্ধে। ফোরামের উপদেষ্টা মীর মো. শাহাবুদ্দিন টিপু লিখিত বক্তব্যে এই দাবি ও অভিযোগ তুলে ধরেন। 

কামরুন নাহার ভিকারুননিসার প্রধান ক্যাম্পাসের অধ্যক্ষ হিসেবে গত ৭ মাস ধরে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। এই ক্যাম্পাসেই (সিদ্ধেশ্বরী) গত ১৫ জুলাই কোরবানির গরুর হাট বসানো হয়।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, গত বৃহস্পতিবার (১৫ জুলাই) ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের প্রধান ক্যাম্পাসে কোরবানির গরুর হাট বসানো হয়। ফখরুদ্দিন বিরিয়ানি হাউজ অ্যান্ড ডেকোরেটরের অধীনে 'ফখরুদ্দিন এগ্রো'র ব্যানারে গরু বেচাকেনা শুরু হয়।

হাট বসানোর বিষয়ে প্রয়াত ফখরুদ্দিনের ছেলে আবদুল খালেক অভিভাবকদের উদ্দেশে বলেন, অধ্যক্ষকে পাঁচ লাখ টাকা ঘুষ দিয়ে আসন্ন ঈদুল আজহা উপলক্ষে রাজধানীর স্বনামধন্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজে কোরবানির পশুর হাট বসিয়েছি।

পরদিন শুক্রবার (১৬ জুলাই) অভিভাবকরা সরেজমিনে দেখতে পান প্রতিষ্ঠানটির ৭, ৮, ৯ ও ১১ নম্বর প্রবেশদ্বারে (গেট) গরুর হাট বসানো হয়েছে। স্কুলের করিডোরে অনেক গরু রাখা হয়েছে। গেটের পাশে গাছে গরু বেঁধে রাখা হয়েছে। এরপর রাতেই প্রশাসনের সহায়তায় ক্যাম্পাসের প্রবেশদ্বার থেকে গরুর হাট সরিয়ে দেওয়া হয় বলে সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়।

এ সময় জানানো হয়, ক্যাম্পাস চালু থাকলে ক্যাম্পাসেই ফখরুদ্দিনের ব্যবসা চলে। ১১ নম্বর গেট দিয়ে মেয়েদের (ছাত্রী) প্রবেশ করতে হয়। ওই সময় ফখরুদ্দিন বিরিয়ানির কর্মচারীরা খালি গায়ে ঘুরাঘুরি করেন। কলেজের মধ্যে এমন পরিবেশ শিক্ষার্থীদের জন্য বিব্রতকর। অভিভাবকরা এই পরিস্থিতির অবসান চান।

দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে অধ্যক্ষ কামরুন নাহার বেশির ভাগ সময়ই ক্যাম্পাসে উপস্থিত থাকেন না বলেও সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করা হয়। ২১ ফেব্রুয়ারি, ২৬ মার্চসহ বিভিন্ন জাতীয় দিবস উদযাপন করা হয় না বলেও জানানো হয় সংবাদ সম্মেলনে। এ ছাড়াও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটির শিক্ষার পরিবেশ নিয়েও প্রশ্ন তোলেন অভিভাবকরা।
শীর্ষনিউজ/এসএসআই