বুধবার, ২১-এপ্রিল ২০২১, ০২:২০ পূর্বাহ্ন
  • স্বাস্থ্য
  • »
  • করোনা সারলেও ‘মস্তিষ্কের রোগে’ ভুগছেন এক-তৃতীয়াংশ মানুষ: গবেষণা

করোনা সারলেও ‘মস্তিষ্কের রোগে’ ভুগছেন এক-তৃতীয়াংশ মানুষ: গবেষণা

shershanews24.com

প্রকাশ : ০৮ এপ্রিল, ২০২১ ০৮:৩৫ অপরাহ্ন

শীর্ষনিউজ, ঢাকা: করোনা সংক্রমণ থেকে সেরে ওঠাদের মধ্যে এক-তৃতীয়াংশ মস্তিষ্কের নানা রোগে ভুগছেন বলে এক গবেষণায় উঠে এসেছে। বুধবার (৭ এপ্রিল) সিএনএন অনলাইনের প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

‘দ্য ল্যানসেট সাইকিয়াট্রি’ সাময়িকীতে প্রকাশিত ওই গবেষণায় বলা হয়, করোনায় সংক্রমিত তিনজনের মধ্যে একজনের দীর্ঘস্থায়ী মানসিক স্বাস্থ্য বা স্নায়ুবিক সমস্যার লক্ষণ রয়েছে।

গবেষকরা বলছেন, করোনাভাইরাস থেকে সেরে ওঠা ৩৪ শতাংশ ব্যক্তির সংক্রমিত হওয়ার ছয় মাসের মধ্যে স্নায়ুবিক বা মানসিক সমস্যা ধরা পড়ছে।

গবেষণায় দেখা যায়, আক্রান্ত হওয়ার পর সুস্থ হয়ে ওঠা ব্যক্তিরা সবচেয়ে বেশি ভোগেন দুশ্চিন্তায়। ১৭ শতাংশের মধ্যে এ সমস্যা দেখা যায়। আর মেজাজের ওঠানামার সমস্যা দেখা গেছে ১৪ শতাংশের মধ্যে।

গবেষকরা দেখতে পান, ফ্লু থেকে সেরে ওঠা ব্যক্তিদের চেয়ে করোনায় আক্রান্ত হওয়া ব্যক্তিদের স্নায়ুবিক ও মানসিক অসুস্থতার ঝুঁকি ৪৪ শতাংশ বেশি।

এই গবেষণায় নেতৃত্ব দেন অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সাইকিয়াট্রি বিভাগের অধ্যাপক পল হ্যারিসন। গবেষণায় ২ লাখ ৩৬ হাজারের বেশি করোনা রোগীর তথ্য বিশ্লেষণ করা হয়েছে। রোগীদের অধিকাংশই যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিক।

অধ্যাপক পল হ্যারিসন মনে করেন, গবেষণার একটি সীমাবদ্ধতা হলো- এখানে গবেষণা তথ্য ব্যবহার না করে ‘স্বাস্থ্যসেবার দৈনন্দিন তথ্য’ ব্যবহার করা হয়েছে। এর অর্থ এমন হতে পারে যে, ডায়াগনোসিসগুলো ঠিকভাবে করা নাও হয়ে থাকতে পারে কিংবা ভুল হয়ে থাকতে পারে।

এক ব্রিফিংয়ে তিনি বলেন, কোভিড-১৯ রোগীরা হয়তো অন্য রোগীদের চাইতে অনেক বেশি ফলোআপ ও স্বাস্থ্যসেবা দানকারীদের কাছ থেকে অনেক বেশি মনোযোগ পেয়েছেন, যার ফলে এই পার্থক্য হয়ে থাকতে পারে। কিন্তু তারপরও এই গবেষণা স্বাস্থ্য সেবাখাতের ওপর দীর্ঘমেয়াদি চাপের বিষয়টি তুলে এনেছে।

হ্যারিসন মনে করেন, ব্যক্তির ওপর এই রোগের প্রভাব তেমন একটা না পড়লেও, যেহেতু এটি একটি বৈশ্বিক মহামারি এবং একেকটি দেশের জনসংখ্যার বড় একটি অংশ এতে আক্রান্ত, সে কারণে স্বাস্থ্যসেবা খাতের ওপর এর বড় প্রভাব পড়ার শঙ্কা থেকেই যায়।
শীর্ষনিউজ/আরএইচ