বুধবার, ২২-সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৪:৪৮ অপরাহ্ন
  • অপরাধ
  • »
  • কঠোর লকডাউনের সুযোগে ডেমরায় দু’টি বাড়ি জবরদখল, পুলিশ ও এমপির ভূমিকা রহস্যজনক

কঠোর লকডাউনের সুযোগে ডেমরায় দু’টি বাড়ি জবরদখল, পুলিশ ও এমপির ভূমিকা রহস্যজনক

shershanews24.com

প্রকাশ : ২৩ জুলাই, ২০২১ ০৮:১৮ অপরাহ্ন

শীর্ষনিউজ, ঢাকা: সরকার ঘোষিত কঠোর লকডাউনে যখন জনজীবন যখন প্রায় বিপর্যস্ত, যখন চারদিকে মৃত্যুর বিভীষিকা-তখন শতাধিক সন্ত্রাসী দিন-দুপুরে জবর দখল করে নিয়েছে দু’টি বাড়ি। গতকাল শুক্রবার রাজধানীর ডেমরা থানাধীন ডগাইর, পশ্চিম পাড়া এলাকায় ৩৩৩ ও ৩৩৪ নং বাদশা মিয়া রোডে এ ঘটনা ঘটে। 
বাড়ির মালিক গৃহবধূ মনিরুন্নাহার জানান, ১৩ বছর ধরে তিনি বাড়ি করে এখানে নির্বিঘ্নে বসবাস করছেন। হঠাৎ করেই সকাল আনুমানিক সাড়ে ৯টার দিকে স্থানীয় ভূমিদস্যু শহীদ খান এবং অদুদ পাটোয়ারির ছেলে বাবুর নেতৃত্বে শতাধিক সন্ত্রাসী সশস্ত্র বাড়িতে আকস্মিক হামলা চালায়। বাড়িতে প্রবেশ করেই তারা ভাড়াটিয়াদের এলোপাতাড়ি মারধোর শূরু করে। আসবাপত্র ভাঙচুর এবং ব্যাপক লুটতরাজ চালায়। 
মনিরুন্নাহার আরও জানান, ১৯৯৪ সালে তিনিসহ চার ভাই-বোন একত্রে ১২ কাঠা নিষ্ককন্টক জমি কেনেন। জমির ওপর বাড়ি করে ২০০৭ সাল থেকে তারা এখানে নির্বিঘ্নে বসবাস করছেন। ৩৩৩ নম্বর বাড়িতে তিনি নিজে বসবাস করেন। ৩৩৪ নম্বর বাড়িটি তার ছোট ভাই বাবরুল আমিনের। পৃথক হোল্ডিং নম্বরের বাড়ি দু’টিতে গ্যাস,পানি, বিদ্যুৎ সংযোগ রয়েছে। ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের আওতায় তারা হোল্ডিং ট্যাক্সও দিচ্ছেন। এখানে চারটি দোকান ভাড়া চলছিলো। সন্ত্রাসীরা দোকানিদেরও উচ্ছেদ করে। বাড়ির পানি ও বিদ্যুৎ সংযোগ কেটে দেয়। দোকানে নতুন ভাড়াটিয়া বসিয়ে দেয়। কিংকর্তব্যবিমূঢ় গৃহবধু মনিরুন্নাহার লকডাউনের মধ্যেই থানায় ছুটে যান। মামলা করতে চাইলে পুলিশ তাকে লিখিত অভিযোগ দিতে বলেন। ঘটনার সংক্ষিপ্ত বিবরণ সম্বলিত লিখিত অভিযোগ দিলে ডেমরা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা খন্দকার নাসিরউদ্দিন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। তবে তিনি সন্ত্রাসী শহিদ ও বাবু বাহিনীর আগে থেকে ঠিক করে রাখা কিছু ব্যক্তির সঙ্গে কথা বলেন। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত (সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা) থানা কোনো এজাহার রেকর্ড করেনি। এছাড়া প্রতিকার চাইতে ওই আসনের এমপি কাজী মনিরুল ইসলাম মনুর সঙ্গেও যোগাযোগের চেষ্টা করেন মনিরুন্নাহার। বারবার ফোন করলেও তার ভাগ্নে পরিচয় দিয়ে অন্য একজন ফোন ধরছেন। 
এদিকে স্থানীয় একটি সূত্র জানায়,উল্লেখিত শহীদ খান  ও বাবু ডগাইর এলাকায় ভূমিদস্যু হিসেবে খ্যাত। সরকারদলীয় এমপি’র ছত্রছায়ায় থাকা কিছু ব্যক্তিদের নিয়ে তিনি গড়ে তুলেছেন নিজস্ব বাহিনী। অভিযোগ রয়েছে, ডগাইর এলাকার জালিয়াতচক্রের সদস্য ছিলেন মৃত ওয়াদুদ পাটোয়ারি। তিনি জাল দলিল সৃষ্টি করে বিভিন্ন বাড়ির মালিকানা দাবি করতেন। পরে সন্ত্রাসীদের নিয়ে বাড়ি জবরদখল করতেন। স্থানীয়রা এ নিয়ে বহু বিচার-সালিশ করেছেন। তাতেও তিনি নিবৃত হননি। কয়েক বছর আগে ওয়াদুদ পাটোয়ারি মৃত্যুবরণ করলে তার ছেলে বাবু পিতার ধারাবাহিকতা রক্ষা করে চলেছেন। পুলিশ প্রশাসনের সঙ্গে হাত করে শহিদ খান ও বাবু বাহিনী একের পর এক বাড়ি জবরদখল করছে। এ দু’টি বাড়ি ছাড়াও সম্প্রতি তারা ডেমরা এলাকায় আরও একটি বাড়ি জবরদখল করেন। বর্তমান এমপি নির্বাচিত হওয়ার পর এ বাহিনী আরও বেপরোয়া হয়ে উঠেছে বলে জানা গেছে। এরই ধারাবাহিক জবরদখলে এবার সন্ত্রাসীচক্রটি ‘কঠোর লকডাউন’ এবং ‘ঈদ-উত্তর’ সময়টিকে বেছে নেয়।
এদিকে এক ঘন্টার মধ্যে দুই দু’টি বাড় জবরদখল করার বিষয়ে জানতে গতকাল সন্ধ্যায় ডেমরা থানার ওসি খন্দকার নাসিরউদ্দিনকে একাধিকবার ফোন দেয়া হয়। প্রতিবারই তিনি ফোন কেটে দেন। পরে মোবাইলে এসএমএস পাঠালেও তিনি কোনো সাড়া দেন নি।  
শীর্ষনিউজ/ওআর